জেএসসি গণিত প্রশ্ন কাঠামো ও মানবন্টন

প্রশ্নকাঠামো ও মানবন্টন | জেএসসি গণিত

জেএসসি গণিত প্রশ্নকাঠামো ও মানবন্টন-২০১৯

এখানে জেএসসি গণিত প্রশ্ন কাঠামো ও মানবন্টন দেয়া হল।  এটি এনসিটিবি কর্তৃক প্রদত্ত সর্বশেষ প্রশ্নকাঠামো ও মানবন্টন। বিস্তারিত তুলে ধরা হল:

পূর্ণমান: ১০০

সৃজনশীল প্রশ্নের জন্য ৭০ নম্বর (প্রতিটি সৃজনশীল প্রশ্নের জন্য ১০ নম্বর)।

বহুনির্বাচনী প্রশ্নের জন্য ৩০ নম্বর (প্রতিটি বহুনির্বাচনী প্রশ্নের জন্য ১ নম্বর)।

সৃজনশীল প্রশ্ন:

প্রশ্নপত্রে ১১টি সৃজনশীল প্রশ্ন থাকবে।

পাটিগণিত থেকে ৩টি, বীজগণিত থেকে ৩টি, জ্যামিতি থেকে ৩টি এবং পরিসংখ্যান থেকে ২টি প্রশ্ন থাকবে।

বিস্তারিত:

পাটিগণিত: প্যাটার্ণ-১টি, মুনাফা-১টি ও পরিমাপ-১টি, মোট ৩টি প্রশ্ন থাকবে।

বীজগণিত: বীজগণিতীয় সূত্রাবলি ও প্রয়োগ-১টি, বীজগণিতীয় ভগ্নাংশ-১টি ও সরল সহসমীকরণ-১টি, মোট ৩টি প্রশ্ন থাকবে।

জ্যামিতি: উপপাদ্য-১টি, সম্পাদ্য-১টি ও অনুসিদ্ধান্ত-১টি, মোট ৩টি প্রশ্ন থাকবে।

পরিসংখ্যান: তথ্য ও উপাত্ত-২টি প্রশ্ন থাকবে।

১১টি সৃজনশীল প্রশ্ন থেকে ৭টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।  ১০ X ৭ = ৭০

পাটিগণিত থেকে ২টি, বীজগণিত থেকে ২টি, জ্যামিতি থেকে ২টি এবং পরিসংখ্যান থেকে ১টি করে মোট ৭টি প্রশ্নের উত্তর দেয়া যাবে।

বহুনির্বচনী প্রশ্ন:

৩০টি বহুনির্বাচনী প্রশ্ন থাকবে।

বিস্তারিত:

পাটিগণিত-১০টি, বীজগণিত-১০টি, জ্যামিতি-০৮টি ও পরিসংখ্যান-০২টি, মোট ৩০টি প্রশ্ন থাকবে।

৩০টি বহুনির্বাচনী প্রশ্নের সবকয়টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।   ১ X ৩০ = ৩০

তথ্যসূত্র: www.nctb.gov.bd

জেএসি পরীক্ষা সম্পর্কিত আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়:

১। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট পূর্বে পরীক্ষার্থীকে অবশ্যই পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে হবে।

২। প্রতিটি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে পরীক্ষার জন্য বরাদ্দ সময় উল্লেখ থাকবে এবং সেই অনুযায়ী পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে।

৩। পরীক্ষার্থীগণ নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান থেকে পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ০৩ দিন পূর্বে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করবে।

৪। পরীক্ষার্থীগণ উত্তরপত্রের OMR ফরমে প্রবেশপত্রে উল্লেখিত রোল নম্বর ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর এবং প্রশ্নপত্রে উল্লেখিত বিষয়কোড যথাযথভাবে লিখে বৃত্ত ভরাট করবে। ফরমটি যেহেতু মেশিন দিয়ে রিড করানো হবে তাই কোন অবস্থাতেই তা ভাঁজ করা যাবে না।

৫। পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষার হলে প্রদত্ত স্বাক্ষরলিপিতে প্রত্যেক বিষয়ের জন্য অবশ্যই স্বাক্ষর করতে হবে।

৬। পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় সাধারন সায়েন্টিফিক ক্যালকুলেটর (প্রোগ্রাম্যাবল নয়) ব্যবহার করতে পারবে।

৭। কোনো পরীক্ষার্থী পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন আনতে পারবে না। কেন্দ্র সচিব ছাড়া আর কেউ পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না।

উল্লেখ্য প্রতিবছরের মতো এ বছরও নভেম্বর মাসে জেএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ইতিমধ্যে ২০১৯ সালের জেএসসি পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ করা হয়েছে। নিচের লিংকটিতে ক্লিক করে এ বছরের পরীক্ষার সময়সুচি ডাউনলোড করা যাবে।

জেএসসি ২০১৯ পরীক্ষার সময়সুচি

About Author

Author
শেখ মোঃ সামছুদ্দিন শাহীন, বিএসসি অনার্স, এমএসসি (গণিত), বিএড এবং পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার সায়েন্স। এনটিআরসিএ শিক্ষক নিবন্ধন করে বর্তমানে ঢাকার একটি ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করছেন। বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের টিচিং কোয়ালিটি ইমপ্রুভমেন্ট (টিকিউআই) বিষয় ভিত্তিক ট্রেনিংসহ এটুআই, ব্যানবেইজ, টিচার্স ট্রেনিং কলেজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলা একাডেমী থেকে বিভিন্ন কোর্স ও ট্রেনিং করেছেন। বোর্ড পরীক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বাংলাদেশের সকল শিক্ষার্থী যাতে বিনামূল্যে গণিত শিখতে পারে সেই লক্ষ্যেই বর্তমানে কাজ করছেন।

আরো দেখো

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা-২০১৮ এর ফলাফল প্রকাশ হবে ৬ মে

৬ মে চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে ১৮ এপ্রিল বুধবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.